এন্ট্রাপ্রেনারশিপ
Now Reading
যে কারণে চাকরি নেওয়ার আগে দ্বিতীয়বার ভাবা জরুরি
কোনো প্রতিষ্ঠানে ইন্টারভিউ দিতে গেলে অথবা চাকরির প্রস্তাব এলে সাতটি লক্ষণ চিহ্নিত করুন। এগুলোর দেখা মিললে চাকরিটি নেওয়ার আগে দ্বিতীয়বার ভাবা জরুরি বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।
১. পুরনো প্রতিষ্ঠানে নতুন কর্মী
বহু পুরনো প্রতিষ্ঠান দেখে হয়তো চাকরিটা নিরাপদ বলেই মনে করছেন। কিন্তু সেখানকার সব কর্মী যদি নতুন হয়ে থাকে তাহলে সমস্যা আছে বলেই ধরে নিতে পারেন।
২. কর্মী সমালোচনা
ইন্টারভিউয়ে বসেছেন। কিন্তু খোদ প্রশ্নকর্তারাই তাঁদের বর্তমান কর্মীদের নিয়ে সমালোচনামূলক মন্তব্য করে চলেছেন। এ ক্ষেত্রে নিজের ভবিষ্যত্টা দেখার চেষ্টা করুন।
৩. বিজ্ঞাপন বারবার
ইন্টারনেটে বসলেই বিভিন্ন চাকরির বিজ্ঞাপন আসতে থাকে। এটা স্বাভাবিক। কিন্তু কোনো বিশেষ চাকরির বিজ্ঞাপন যদি ক্রমাগত আসতেই থাকে তাহলে বুঝে নিন, এতে খারাপ কিছু না কিছু আছেই।
৪. ভালো-খারাপ বিবেচনা
ওই অফিসে চাকরির সবচেয়ে ভালো ও খারাপ বিষয় কী হতে পারে—এ প্রশ্নের জবাব বের করুন। যদি দুটো বিষয়েই সন্দেহজনক উত্তর মেলে, তাহলে ভেগে যাওয়াই ভালো।
৫. প্রশিক্ষণ-নিরাপত্তা ফি
অদ্ভুত হলেও সত্য, কিছু চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠান নতুন কর্মীর প্রশিক্ষণ বা সিকিউরিটি বাবদ চার্জ দাবি করে। এদের না বলে দিন।
৬. কর্মীদের কাছে কেমন
অফিসের অন্য কর্মীদের সঙ্গে কথা বলুন। যদি দেখেন তাঁরা কর্তৃপক্ষকে সুনজরে দেখেন না, তবে আপনার জন্য চাকরিটি ভালো হবে না।
৭. বাকি সাক্ষাৎকার প্রার্থী
আপনার আগে যাঁরা ইন্টারভিউ থেকে বেরিয়ে আসছেন তাঁদের লক্ষ করুন। যন্ত্রণাকাতর ও মর্মাহত ভাব কি সুস্পষ্ট? তাহলে মনে হয় না আপনাকে প্রতিষ্ঠান এর চেয়ে বেশি কিছু দিতে পারবে।
[বিজনেস ইনসাইডার]

নিচের বাটনগুলোর সাহায্যে খবরটি শেয়ার করুন