বিবিধ
Now Reading
ব্যতিক্রমী সব উদ্ভাবনী উদ্যোগ

কিছু মানুষ বর্তমান বিশ্বে দুর্দান্ত কিছু উদ্যোগ দিয়ে শুধু চলমান সভ্যতার গতিপথকেই পাল্টে দেয়নি, ভাগ্য পরিবর্তিত হয়েছে সেই সব মানুষদেরও। তারা রীতিমত বিলিয়নিয়ার তাঁদের ব্যতিক্রমী সব উদ্ভাবনী উদ্যোগের কারণে। এদের সবারই শুরু একেবারে শূন্য থেকে। চলুন দেখি কিছু উদ্ভাবনী আইডিয়ার পেছনের গল্প।

urlল্যারি পেজ, সার্গেই ব্রিন এবং গুগল
ল্যারি পেজ ও সার্গেই ব্রিন যখন স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার বিজ্ঞানে পিএইচডি’র ছাত্র থাকা অবস্থায়ই তারা সার্চ ইঞ্জিনের কথা ভাবেন। তাদের উদ্ভাবিত সার্চ ইঞ্জিন এমন কিছু আলাদা বৈচিত্র্য নিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছিলো যা বাজারে থাকা অন্য সার্চ ইঞ্জিনের তুলনায় এগিয়ে ছিলো। গুগলে কোনো কিছু লিখে সার্চ দিলেই সেই রকম প্রাসঙ্গিক আরো অনেকগুলো লিঙ্ক চলে আসে।

প্রতিষ্ঠার সময় সার্চ ইঞ্জিন গুগল চমক নিয়ে আসতে পেরেছিলো বলেই বর্তমানে এই মার্কেট নিয়ন্ত্রণ বলা যায় এককভাবেই তাদের হাতে। নিজেদের সৃজনশীল আইডিয়া দিয়ে তারা গুগলের মত একটি প্রতিষ্ঠানের যাত্রা শুরু করে। আর বর্তমানে ল্যারি পেজ এবং সার্গেই ব্রিন এই দুইজনের সম্মিলিত সম্পদের পরিমাণ কত ধারণা করতে পারেন! তারা যৌথ ভাবে ৬৬ বিলিয়ন ডলারের মালিক!

শুধু তাই নয়। বর্তমানে প্রযুক্তি বিশ্বের সব থেকে জনপ্রিয় পণ্য ব্যবসাতেও গুগলের আধিপত্য লক্ষ্য করার মত। স্মার্টফোনের সব থেকে জনপ্রিয় ওএস অ্যান্ড্রয়েড, ইন্টারনেটে ভিডিও দেখার জনপ্রিয় ওয়েভসাইট ইউটিউবও গুগলের মালিকানায় রয়েছে। বর্তমানে গুগল ভবিষ্যতের প্রযুক্তি পণ্য নিয়ে গবেষণা করছে।

Mark-Zuckerbergমার্ক জাকারবার্গ ও ফেসবুক
এবার আসা যাক হাল আমলের সবচেয়ে প্রভাবশালী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গের কথায়। তিনি বিশ্ববিখ্যাত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হার্ভার্ড থেকে ছিটকে পড়া একজন ছাত্র। কিন্তু তাতে তাঁর জীবন থেমে থাকেনি। তিনি বর্তমান বিশ্বকে এমন ব্যতিক্রমী এক প্ল্যাটফর্ম উপহার দিয়েছেন যা নিয়ে দিন রাত মানুষ বুঁদ হয়ে থাকে।

জাকারবার্গ হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকতেই নতুন আইডিয়া নিয়ে কাজ শুরু করেন। তাঁর চিন্তার মূল বিষয়টাই ছিলো হয় তার আইডিয়াটা খুব জনপ্রিয় হবে, না হলে কিছুই হবে না। বাস্তবতা হলো তার আইডিয়াটা বাস্তবতায় ফেসবুক বর্তমান শতকে মনে হয় এখন পর্যন্ত সেরাই বলা যায়। জাকারবার্গ এমন কিছু একটা আবিস্কার করতে চেয়েছিলেন যা দিয়ে মানুষের সঙ্গে সহজেই যোগযোগ করা যাবে।

আপনি জানলে অবাক হবেন প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখন পর্যন্ত ফেসবুকের মার্কেট ভ্যালু ২৫০ বিলিয়ন ডলার চেয়েও বেশি। আর মার্ক জাকারবার্গের মোট সম্পদের পরিমাণ ৩৫ বিলিয়ন ডলার। এত কম বয়সে তার মত সম্পদশালী দ্বিতীয় আর কোনো ব্যাক্তি নেই এই গ্রহে।

Jeff-BezosCEO-Amazonজেফ বেজস ও আমাজন ডট কম
পণ্য বেচা-কেনার জন্য আমাদের প্রথাগত যে ধারনা তা আমূল পাল্টে দিয়েছে যে প্রতিষ্ঠান তার নাম আমাজন ডট কম। কোনো মার্কেট বা শপিং মলের বাইরেও যে পণ্য বেচা-কেনা সম্ভব তাও আবার ভার্চুয়াল জগতে, তা কে ভেবেছিল কয়েক দশক আগে? ঠিক সেই কাজটিই করে দেখিয়েছেন জেফ বেজস

১৯৮৬ সালে তিনি প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক শেষ করে যোগ দেন ওয়াল স্ট্রিট-এ। সেখানে তিনি কম্পিউটার নেটওয়ার্কিং নিয়ে কাজ করতেন। সেই সময় থেকেই তিনি ইন্টারনেট নেটওয়ার্কিং এর মাধ্যমে ব্যবসার আইডিয়া নিয়ে কাজ করতে থাকেন। তিনি ১৯৯৪ সালে আমেরিকানদের জন্য প্রতিষ্ঠা করেন অনলাইন মার্কেট প্লেস আমাজন ডট কম। এই প্রতিষ্ঠান বই, আসবাবপত্র, ইলেকট্রনিক্স থেকে শুরু করে ওয়াইন সবই বিক্রি করে অনলাইনে। বর্তমানে আমাজনের মার্কেট ভ্যালু ২০০ বিলিয়ন ডলার।

আর এর প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জেফ বেজস’র মোট সম্পদের পরিমাণ ৩৮ বিলিয়ন ডলার। চলতি বছরের মার্চ মাসে বেজোস বিখ্যাত দ্য ওয়াশিংটন পোষ্ট পত্রিকাটি কিনে নিয়েছেন।

উপরের মানুষগুলো কিন্তু জন্ম সূত্রে কেউ ধনী নন। তাদেরকে বিশ্বব্যাপী বলা হয় সেল্ফ মেড বিলিয়নিয়ার। অর্থাৎ নিজের প্রচেষ্টায়, নতুন উদ্ভাবনী আইডিয়া নিয়ে এসে তারা সফল হয়েছেন। আপনিও চাইলে শুরু করতে পারেন। মনে রাখবেন, আপনি ব্যর্থ হতে পারেন কিন্তু আপনার জীবন সেখানেই থেমে যাবে না। একটি গবেষণায় দেখা গেছে প্রায় প্রতি দশটি উদ্যোগের মধ্যে ৯ টিই ব্যর্থ হয়। কিন্তু দশটার মধ্যে যে উদ্যোক্তার একটা উদ্যোগ সফল হয় সেইটাই বর্তমান বিশ্বকে এগিয়ে নেয় সামনের দিকে। কে জানে সেই একটি উদ্যোগ আপনারও হতে পারে!

নিচের বাটনগুলোর সাহায্যে খবরটি শেয়ার করুন