বিবিধ
Now Reading
১৮ লাখে বিক্রি হলো চাঁদের মাটির ব্যাগ

১৮ লাখে বিক্রি হলো চাঁদের মাটির ব্যাগ

চাঁদের বুকে পা রাখা প্রথম মানব নিল আর্মস্ট্রং যে ব্যাগে ভরে মাটি আর পাথরের টুকরোসহ বিভিন্ন নমুনা বয়ে এনেছিলেন, নিউ ইয়র্কের এক নিলামে তা বিক্রি হয়েছে ১৮ লাখ ডলারে। নাসার অ্যাপোলো-১১ অভিযানে ব্যবহৃত ওই ব্যাগটির ক্রেতার নাম এখনও প্রকাশ করা হয়নি।

১৯৬৯ সালের ওই চন্দ্রাভিযানের এই একটিমাত্র সামগ্রীই সাধারণ মানুষের হাতে রয়েছে। সে ব্যাগটি মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা (নাসা) হারিয়ে ফেলেছিল। ভুল করে লেবেল না লাগানোয় চাঁদের মাটির ওই ব্যাগ জনসন স্পেস সেন্টারের একটি বাক্সের মধ্যে পড়ে ছিল। পরে পুরনো বিভিন্ন জিনিসপত্রের সঙ্গে ওই ব্যাগটিও ২০১৫ সালে নিলামে তোলে নাসা।

নিলামে মাত্র ৯৯৫ ডলারে ‘লুনার স্যাম্পল রিটার্ন’ লেখা ব্যাগটি কিনে নেন ন্যান্সি কার্লসন নামের একজন আইনজীবী। তবে তিনিও জানতেন না, কি বস্তু তিনি এত সস্তায় কিনে ফেলেছেন। এরপর সে ব্যাগটি তিনি নাসার কাছেই পরীক্ষার জন্য পাঠান। নাসা পরীক্ষা করে জানায় এটি চাঁদের দুর্লভ মাটি। এরপর তারা সে ব্যাগটি আর ফেরত দিতে চায়নি। কিন্তু সে ব্যক্তি আদালতের দ্বারস্থ হয়ে ব্যাগটি ফেরত নেন।

এরপর তারা সে ব্যাগটি আর ফেরত দিতে চায়নি। কিন্তু সে ব্যক্তি আদালতের দ্বারস্থ হয়ে ব্যাগটি ফেরত নেন।

এরপর এমনকি ভুল বুঝতে পেরে চাঁদের মাটির ওই ব্যাগ ফিরে পওয়ার জন্য আদালতে গিয়েছিল নাসা। কিন্তু গতবছর যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল আদালত এক রায়ে জানায়, ন্যান্সি কার্লসনই এখন ব্যাগটির বৈধ মালিক।

এক বছরের মাথায় ন্যান্সি কার্লসন ওই ব্যাগ বিক্রি করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন এবং অ্যাপোলো-১১ অভিযানের ৪৮ বছর পূর্তির দিনে নিউ ইয়র্কে ব্যাগটি নিলামে তোলা হয়, যেখান থেকে ১৮ লাখ ডলার কামালেন সে ব্যক্তি।

নিচের বাটনগুলোর সাহায্যে খবরটি শেয়ার করুন