আইকন
Now Reading
‘কণ্ঠস্বর’ বদলাচ্ছেন স্টিফেন হকিং
Stephen Hawking

‘কণ্ঠস্বর’ বদলাচ্ছেন স্টিফেন হকিং

তাঁর এত দিনের এত সাধের গলার স্বরটা এ বার বদলাতে চান প্রবাদপ্রতিম বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং। আর স্টিফেন হকিং চাইলে কি না হয়! কে না চাইবেন হকিংয়ের গলায় তাঁর নিজের স্বরটা শুনতে? তিনি যে স্টিফেন হকিং, যাঁকে গোটা বিশ্ব স্যালুট দিয়ে চলেছে গত পাঁচ দশক ধরে।

তাই হকিংয়ের গলায় তাঁর স্বরটাই ‘বাজুক’, এই ইচ্ছায় হলিউড কাঁপানো, দাপানো অভিনেতাদের লম্বা লাইন পড়ে গিয়েছে হকিংয়ের বাড়ির সামনে। অ্যাপ্লিকেশনের পর অ্যাপ্লিকেশন। তার সঙ্গে বিনোদন জগতের নামীদামি সেলেব্রিটিরা তাঁদের ভয়েসের অডিও ক্যাসেটও পাঠাতে শুরু করে দিয়েছেন হকিংয়ের কাছে।

কিন্তু না, তাঁর গবেষণার মতোই বড্ড খুঁতখুতে স্বভাব হকিংয়ের! একের পর এক সেলিব্রিটিকে ‘নো’ বলে দিচ্ছেন! তাঁদের কারও স্বরই তার পছন্দ হচ্ছে না। হকিংয়ের গলায় নিজের স্বর শুনবেন বলে কারা লাইন দিয়েছেন, জানেন? হলিউড কাঁপানো নক্ষত্র লিয়াম নীসন, আন্না কেন্ড্রিক ও এডি রেডমেন। ২০১৪-য় ‘দ্য থিয়োরি অফ এভরিথিং’-এ তিন জনই অভিনয় করেছিলেন হকিংয়ের চরিত্রে। আর তার পরেও হকিংয়ের ‘গলার স্বর’ হওয়ার জন্য তাঁদের অডিশন দিতে হচ্ছে বলে ভেতরে ভেতরে কিছুটা তেতেও রয়েছেন ওই তিন অভিনেতা।

১৯৬৩ সালে অ্যামিওট্রপিক ল্যাটেরাল স্ক্লেরোসিস রোগে আক্রান্ত হন হকিং। তখনও তিনি কথা বলতে পারতেন তাঁর নিজের গলার স্বরেই। কিন্তু ’৮৫ সালে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার পর ডাক্তাররা তাঁর ঘাড়ে ছিদ্র করে একটি টিউব ঢোকানোর পর নিজের বাকশক্তি হারিয়ে পেলেন হকিং। তার পর থেকেই হকিংয়ের গলার স্বর নিয়ন্ত্রণ করে একটি কম্পিউটারভিত্তিক যোগাযোগব্যবস্থা। যার প্রযুক্তি-প্রকৌশল ‘ইন্টেল কর্পোরেশন’-এর।

নিচের বাটনগুলোর সাহায্যে খবরটি শেয়ার করুন