টেকওয়ার্ল্ড
Now Reading
সাম্রাজ্য ফিরে পেতে আরও উদ্যোগী মাইক্রোসফট

প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) সত্য নাদেলা গত দুই বছরে বিশ্বের কাছে পাল্টে দিয়েছেন মাইক্রোসফটের ভাবমূর্তি। প্রযুক্তি খাতের এক সময়ের সাম্রাজ্যবাদী প্রতিষ্ঠান হিসেবে এখন তারা ভিন্নভাবে নজর কাড়ছে বিশেষজ্ঞদের। মার্কিন এ টেক জায়ান্ট এখন সবার সঙ্গেই অংশীদারিত্বে যেতে প্রস্তুত।

অ্যান্ড্রয়েড ও আইফোন অ্যাপ উন্মোচন থেকে লিনাক্সের মতো প্রতিদ্বন্দ্বীর সঙ্গে যৌথভাবে ফ্ল্যাগশিপ প্রযুক্তি তৈরি — সব কিছুতেই প্রতিষ্ঠানটি নিজের অবস্থান বিস্তৃত করতে বদ্ধপরিকর। আগের চেয়ে অনেকটা উন্মুক্তমনা হয়ে উঠেছে মাইক্রোসফট। আগামীকাল লস অ্যাঞ্জেলেসের কনভেনশন সেন্টারে শুরু হচ্ছে বার্ষিক ইথ্রি ভিডিও গেম এক্সপো। এ মেলায় বাস্তবতার মুখোমুখি হতে চলেছে নাদেলার ‘শান্তি ও প্রীতি’ দর্শন। পৃথিবীর তাবৎ খুঁতখুঁতে গেমার কমিউনিটির সামনে প্রতিষ্ঠানটি তুলে ধরবে মাইক্রোসফট এক্সবক্স ওয়ান ভিডিও গেম কনসোল ও উইন্ডোজ ১০ পিসির মধ্যকার চলমান সংযুক্তির খতিয়ান। গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইএইচএসের বিশেষজ্ঞ পিয়ের্স হার্ডিং-রোলসের ভাষায়, অনন্য এক প্লাটফর্মে ভূমিকা রাখছে মাইক্রোসফট। মূল পিসি ও কনসোল গেমারদের পৃথক কমিউনিটির মধ্যে সেতু তৈরিতে শক্তিশালী অবস্থান গড়তেও সক্ষম হয়েছে।

মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ডেভেলপারদের গণ্ডি ছাড়িয়ে পৌঁছে গেছে ৩০ লাখের বেশি উইন্ডোজ ১০ ব্যবহারকারীর কাছে। অতএব, সবক্ষেত্রেই মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ১০ ছড়িয়ে দিতে চাইছে, তা এক্সবক্স হোক অথবা পিসি। উইন্ডোজই এখানে মূল কথা। এ সফটওয়্যারে ভর করেই অর্থাগম চায় প্রতিষ্ঠানটি। এক্সবক্স ওয়ান ও উইন্ডোজ ১০-এর যুগলবন্দি পূরণ করতে পারে মাইক্রোসফটের আরেকটি ধারণা। নাদেলা অনেক দিন ধরেই বলে আসছেন, এক্সবক্স ওয়ান লিভিং রুম ও বাড়ির বিভিন্ন জায়গায় সংযোগ রক্ষায় কাজ করবে। বিষয়টি ঠিক অ্যামাজন ইকো ও অ্যাপল টিভির মতোই। এক্সবক্স ওয়ানের মাধ্যমে প্রতিদ্বন্দ্বীদের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন তিনি। অর্থাত্, মাইক্রোসফট কোনো বিষয়ে ঘোষণা দেয়ার ক্ষেত্রে সতর্কতামূলক শব্দ ব্যবহার করে থাকে। প্রতিষ্ঠানটি এখন নবীন ও বন্ধুতাপূর্ণ সম্পর্ক স্থাপনে গুরুত্ব দিতে পারে। কিন্তু সবসময়ই ইচ্ছুক ভোক্তাদের সঙ্গে পথ চলতে।

নিচের বাটনগুলোর সাহায্যে খবরটি শেয়ার করুন